লন্ডনে ছেলে তারেকের ‌বডিগার্ড, দেশে বাবা নৌকার মাঝি!

লন্ডনে ছেলে তারেকের ‌বডিগার্ড, দেশে বাবা নৌকার মাঝি!

চতুর্থ ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের আগে সিলেটে আলোচনার জন্ম দিয়েছে সিলেট-৬ আসনের অন্তর্গত বিয়ানীবাজার ও গোলাপগঞ্জ উপজেলা। অভিযোগ উঠেছে এ দুই উপজেলায় তৃণমূলের রায়কে অগ্রাহ্য করে পাল্টে দেওয়া হচ্ছে নৌকার প্রার্থী। বিশেষ করে তারেক রহমানের বডিগার্ড পরিচয় দেওয়া ছেলের বাবা নৌকার মনোনয়ন পাওয়ায় তীব্র ক্ষোভ ও অসন্তোষ দেখা দিয়েছে তৃণমূলে।


নৌকার প্রার্থী পাল্টে যাওয়াকে কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছেন না তৃণমূলের নেতা কর্মিরা। আর দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের ভয়ে প্রকাশ্যে মুখ খুলছেন না কেউ। গত চারদিনে সিলেট জেলায় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে ১০ বিদ্রোহী প্রার্থীকে বহিষ্কার করায় তারাও রয়েছেন আতংকে।



ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ঘিরে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের নেতারা প্রতিটি উপজেলায় গিয়ে সরাসরি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতাদের ভোটে নৌকার প্রার্থী বাছাই করছেন। বাছাই শেষ হওয়ার পর তারা পৃথকভাবে উপজেলা ও জেলার নেতাদের নিয়ে বৈঠক করে প্রতিটি ইউনিয়নের রিপোর্ট পর্যায়ক্রমে সাজিয়ে ৩ জনের তালিকা কেন্দ্রের কাছে প্রেরণ করেন।


কিন্তু তৃণমূলের এ সব রায়কে অগ্রাহ্য করে অনেক ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী বদলে যাচ্ছে। তুলনামূলক কম জনপ্রিয় ও তৃণমূলের ভোটে পরাজিত প্রার্থী এবং অন্য দল থেকে আওয়ামী লীগে যোগদান করা নেতাকর্মীরা হয়ে যাচ্ছেন নৌকার প্রার্থী। বেশ কয়েকটি উপজেলায় পর্যায়ক্রমে একের পর এক এমন ঘটনা ঘটায় এ নিয়ে তোলপাড় চলছে সিলেট আওয়ামী লীগে। অনেকেই কেন্দ্রের নেতাদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে এ ব্যাপারে নালিশ করলেও তাতে কোনো কাজ হচ্ছে না বলে জানা গেছে। চতুর্থ ধাপে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে গোলাপগঞ্জ ও বিয়ানীবাজারে। এ দুটি উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী বদল হওয়া নিয়ে ব্যাপক ক্ষোভ বিরাজ করছে।


গোলাপগঞ্জের দুটি ইউনিয়নে প্রার্থী পাল্টানোকে মেনে নিতে পারছেন না নেতাকর্মীরা। বিশেষ করে বুধবারি বাজার ইউনিয়নে তৃণমূলের প্রার্থী পাল্টানোকে কেন্দ্র করে তীব্র ক্ষোভ ও অসন্তোষ বিরাজ করছে। তৃণমূলের মতামতে ১৪ ভোট পেয়ে প্রথম হলেও ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি হালিমুর রশীদ রাপু পাননি নৌকার টিকিট। ১ ভোট পাওয়া আব্দুর রকিব ফারন এই ইউনিয়নে নৌকার মনোনয়ন পেয়েছেন। আর বাদেপাশা ইউনিয়নে তৃণমূলের ভোটে প্রথম হওয়া আলিম উদ্দিন বাবুলকে পেছনে ফেলে মনোনয়ন পান বর্তমান চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমদকে।


স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতা জানিয়েছেন, আব্দুর রকিব ফারনের ছেলে লাহিন আলম যুক্তরাজ্য শাখা স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ সভাপতি। সে নিজেকে তারেক রহমানের বডিগার্ড পরিচয় দেয়। আর তার বাবা কিনা নৌকার কান্ডারি। তার আরেক ছেলে বিএনপি নেতা ছয়ফুল আলম শাহিন। তিনি জাতির পিতাকে নিয়ে কটূক্তি করেছিলেন বলে দাবি করেন তিনি। তারেক রহমানের বডিগার্ডের বাবা নৌকার মাঝি এটা আমরা কোনদিনই মেনে নেবো না।




তৃণমূলের অনেকেই  অভিযোগ করেছেন, টাকার বিনিময়ে প্রার্থী পাল্টে দেওয়া হচ্ছে এবং এতে রয়েছে লন্ডনের কানেকশন। লন্ডন থেকে অনেকেই নৌকার টিকিট কনফার্ম করে সিলেটে এসে প্রার্থী হচ্ছেন।


স্থানীয় নেতারা জানিয়েছেন, বিয়ানীবাজারের দুবাগ ইউনিয়নে তৃণমূলের ভোটে প্রথম হয়েছিলেন পলাশ আফজাল। কিন্তু মনোনয়ন পেয়েছেন আব্দুস সালাম। তিলপাড়ায় ভোটে প্রথম হয়েছিলেন আহবাবুর রহমান খান। মনোনয়ন পেয়েছেন এমাদ উদ্দিন। একইভাবে মোল্লাপাড়ায় ভোটে প্রথম হন আশফাক আহমদ। প্রার্থী হন শামীম আহমদ নামে একজন। তিনটি ইউনিয়নে তৃণমূলের ভোটকে অগ্রাহ্য করে প্রার্থী দেওয়ার কারণে বেশ তোলপাড় চলছে।


প্রার্থী পাল্টানোর ঘটনায় বিয়ানীবাজার উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কাশেম পল্লবের একটি ভিডিও বার্তা এখন এ দুই উপজেলায় টক অব দ্য টপিক। তিনি জানিয়েছেন, সঠিক প্রার্থী বাছাইয়ের অভাবে নৌকা ফেল করে। বাছাই যদি সঠিকভাবে হয় তাহলে আমি মনে করি কোনো জায়গায় নৌকা হারার সম্ভাবনা নেই।


এ ব্যাপারে জানতে চাইলে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সাবেক এমপি শফিকুর রহমান চৌধুরী বলেন, আমাদের কাজ হচ্ছে গণতান্ত্রিকভাবে প্রার্থী বাছাই প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে কেন্দ্রে তালিকা পাঠানো। সেটি আমরা স্বচ্ছতা এবং আন্তরিকতার সঙ্গে করে যাচ্ছি। এখন কেন্দ্র থেকে যাকেই প্রার্থী দেওয়া হচ্ছে আমরা তার পক্ষেই কাজ করছি। এ সময় তিনি আরও জানান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন খানকে সঙ্গে নিয়ে তিনি প্রায় প্রতিটি ইউনিয়ন নির্বাচনে তিনি প্রচারণা চালাচ্ছেন। এখন কেন্দ্র কী কারণে প্রার্থী পরিবর্তন করে সেটি তার কাছে বোধগম্য নয়।

আপনার মতামত লিখুন :