টাঙ্গাইলবুধবার , ২৭শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. খেলাধুলা
  5. গণমাধ্যম
  6. জবস
  7. জাতীয়
  8. টপ নিউজ
  9. টাঙ্গাইলে করোনা মহামারি
  10. তথ্যপ্রযুক্তি

বাংলাদেশ-চীন সম্পর্কে রাজনীতির চেয়ে ব্যবসা গুরুত্বপূর্ণ

অনলাইন ডেস্ক
আপডেট : অক্টোবর ১০, ২০২১
Link Copied!

ব্যবসা ও উন্নয়ন বিবেচনায় বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অংশীদার চীন। দুই দেশের সম্পর্কে রাজনীতির চেয়ে ব্যবসার গুরুত্ব বেশি বলে করছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।  

তিনি বলেছেন, ব্যবসা ও উন্নয়ন কার্যক্রমের বিবেচনায় চীন বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অংশীদার। বাংলাদেশ যত কাঁচামাল আমদানি করে তার বড় অংশই আসে চীন থেকে। পোশাক খাতের কাঁচামাল ও এক্সেসরিজে চীনের ওপর নির্ভরশীলতা রয়েছে। এছাড়া, দেশের মধ্যে যত বড় বড় নির্মাণ কার্যক্রম আছে, সেগুলোর মধ্যে অনেকক্ষেত্রেই চীনের অংশগ্রহণ রয়েছে। ফলে দুই দেশের সম্পর্কে রাজনীতির চেয়ে ব্যবসার গুরুত্ব বেশি।
 
রোববার বাংলাদেশ চায়না চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (বিসিসিসিআই) ও ইকোনোমিক রিপোর্টার্স ফোরাম (ইআরএফ) আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বাণিজ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন। ‘বাংলাদেশ-চীন দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ওপর সেরা রিপোর্টিং অ্যাওয়ার্ড’ বিতরণ উপলক্ষে রাজধানীর পল্টনে ইআরএফ কার্যালয়ে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে অনলাইনে যুক্ত ছিলেন ঢাকাস্থ চীনা রাষ্ট্রদূত লি জিমিং।  

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, পৃথিবীটাই ব্যবসার ওপর চলছে। বৈশ্বিক রাজনীতি এখন অর্থনৈতিক রাজনীতি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলে থাকেন, শুধু রাজনৈতিক কূটনীতিতে হবে না। ব্যবসা বাণিজ্যের বিষয়ে কূটনীতি করতে হবে। সেই কূটনীতিতে যে সফল হবে, সে-ই প্রকৃত সফল।

জাতিসংঘের ৭৬তম অধিবেশনে চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিংপিংয়ের বক্তব্যের উদ্বৃতি দিয়ে রাষ্ট্রদূত লি জিমিং বলেন, চীন বৈশ্বিক উন্নয়নে কাজ করতে বিভিন্ন উদ্যোগ নিচ্ছে। সবুজ ও স্বাস্থ্যসম্মত বৈশ্বিক উন্নয়ন চায় চীন। মানব কল্যাণে এবং কাউকে পেছনে না ফেলে উন্নয়ন চায় চীন। এজন্য আঞ্চলিক উন্নয়ন ও বিভিন্ন উদ্ভাবনে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। 

তিনি বলেন, বাংলাদেশও চীনের এ বৈশ্বিক উন্নয়ন উদ্যোগ থেকে সহায়তা পাবে। গত ৫০ বছরে বাংলাদেশের অসাধারণ অগ্রগতি হয়েছে। সহস্রাব্দের উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এমডিজি) নির্ধারিত সময়ে অর্জন হয়েছে। আগামী উন্নয়ন লক্ষ্যগুলোও সময়মত অর্জন হবে। ২০২৬ সালে এলডিসি থেকে উত্তরণ ঘটবে বাংলাদেশের। আর ২০৩০ সালের মধ্যে বিশ্বের ৩৫তম অর্থনীতিতে রূপান্তরিত হবে।

প্রথমবার বিসিসিসিআই ও ইআরএফ যৌথভাবে এ ধরনের অ্যাওয়ার্ডের আয়োজন করল। এতে ইআরএফের অর্ধশতাধিক সদস্য প্রতিবেদন জমা দেন। এর মধ্য থেকে বাংলাদেশ চীনের সম্পর্কের বিভিন্ন খাতভিত্তিক ১০টি ক্যাটাগরিতে ১০টি রিপোর্টকে সেরা হিসেবে অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয়েছে। বিজয়ী রিপোর্টারদের ক্রেস্ট, সনদ ও ৫০ হাজার টাকা করে পুরস্কার দেওয়া হয়েছে। বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন বাণিজ্যমন্ত্রী, বিসিসিসিআই সভাপতি গাজী গোলাম মুর্তজা, ইআরএফ সভাপতি শারমীন রিনভীসহ অনুষ্ঠানে উপস্থিত অন্যান্যরা।  

বিসিসিসিআইয়ের যুগ্ম মহাসচিব আল মামুন মৃধার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংগঠনটির মহাসচিব শাহাজাহান মৃধা বেনু। তিনি বলেন, বাংলাদেশ-চীনের উষ্ণতম অর্থনৈতিক, ব্যবসায়িক ও কূটনৈতিক সম্পর্ক সৃষ্টি করাই বিসিসিসিআইয়ের মূল লক্ষ্য। এ ধরনের রিপোর্টিং এ লক্ষ্যকে এগিয়ে নেবে।

ইআরএফ সাধারণ সম্পাদক এস এম রাশিদুল ইসলাম বলেন, চীন বাংলাদেশের অন্যতম উন্নয়ন অংশীদার। ব্যবসা বাণিজ্যের বিভিন্ন ক্ষেত্রে চীনের ওপর নির্ভরশীলতা রয়েছে। মহামারি মোকাবিলায় করোনার টিকা এবং অন্যান্য উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে সহযোগিতা করছে। আশা করা যায় বিসিসিসিআই এ সম্পর্ককে আরও এগিয়ে নেবে।

পরে ধন্যবাদ জানান বিসিসিসিআই সভাপতি গাজী গোলাম মুর্তজা ও ইআরএফ সভাপতি শারমীন রিনভী। বিসিসিসিআইয়ের যুগ্ম মহাসচিব আল মামুন মৃধা তার সমাপনী বক্তব্যে এই অ্যাওয়ার্ডের ধারাবাহিকতা রক্ষা এবং সাংবাদিকদের জন্য ফেলোশিপ চালু করা হবে বলে জানান।      

যারা অ্যাওয়ার্ড পেলেন 

দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য সম্পর্ক ক্যাটাগরিতে দ্য বিজনেস স্ট্যান্ডার্ডের বিশেষ প্রতিনিধি আবুল কাশেম, বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ন অবকাঠামো প্রকল্পে চায়নিজ রাষ্ট্রীয় কোম্পানির বিনিয়োগ ক্যাটাগরিতে দ্য নিউ এজ পত্রিকার বিশেষ প্রতিনিধি সাখাওয়াত হোসেন, বাংলাদেশে চাইনিজ বেসরকারি বিনিয়োগ ক্যাটাগরিতে দ্য ডেইলি স্টারের স্টাফ রিপোর্টার আহসান হাবীব, বাংলাদেশের বেসরকারি খাতের প্রবৃদ্ধিতে চায়নিজ কোম্পানির সম্পৃক্ততা ক্যাটাগরিতে আলোকিত বাংলাদেশের স্টাফ রিপোর্টার মৌসুমী ইসলাম (বর্তমানে নিউজবাংলাটোয়েন্টিফোর ডটকমে কর্মরত), বাংলাদেশে চায়নিজ বিনিয়োগকারী ও তাদের কর্মীদের জীবনাচরণ ক্যাটাগরিতে দ্য ফাইন্যান্সিয়াল এক্সপ্রেসের বিশেষ প্রতিনিধি জসিমউদ্দিন হারুণ, বাংলাদেশ-চীন সম্পর্ক উন্নয়নের চ্যালেঞ্জ ক্যাটাগরিতে দ্য ফাইন্যান্সিয়াল এক্সপ্রেসের ইকোনমিক এডিটর প্রয়াত এ জেড এম আনাস পুরস্কার পেয়েছেন। 

এছাড়া, বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের উচ্চশিক্ষার জন্য চীন ক্যাটাগরিতে নিউজ২৪ টেলিভিশনের স্টাফ রিপোর্টার বাবু কামরুজ্জামান, করোনাভাইরাস মহামারির সময়ে বাংলাদেশ-চায়নিজ বেসরকারি খাতের উদ্যোগ ক্যাটাগরিতে যমুনা টেলিভিশনের সিনিয়র রিপোর্টার আলমগীর হোসেন, পর্যটন, আপ্যায়ন ও সাংস্কৃতিক খাতে বাংলাদেশ চীন বেসরকারি খাতের উদ্যোগ ক্যাটাগরিতে গাজী টেলিভিশনের স্টাফ রিপোর্টার তৌহিদুল ইসলাম এবং বাংলাদেশ-চীন ভৌগলিক অর্থনীতি অথবা অর্থনৈতিক কূটনীতি ক্যাটাগরিতে যমুনা টেলিভিশনের সিনিয়র রিপোর্টার মাসুদুজ্জামান রবীন পুরস্কার পেয়েছেন।    

বিচারক হিসেবে ছিলেন, পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর, দ্য বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড পত্রিকার চিফ নিউজ এডিটর এ এম এম হারুনর রশিদ, বিসিসিসিআইর সহসভাপতি অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগ্রেডিয়ার জেনারেল শাহ মো. সুলতান উদ্দিন ইকবাল, গ্লোবাল ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিজম নেটওয়ার্কের অন্যতম সম্পাদক মিরাজ আহমেদ চৌধুরী। পুরস্কারের পুরো প্রক্রিয়াকে সমন্বয় করেছেন বার্তা সংস্থা রয়টার্সের সাবেক ব্যুরো প্রধান সিরাজুল ইসলাম কাদির।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।