টাঙ্গাইলমঙ্গলবার , ১৯শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. খেলাধুলা
  5. গণমাধ্যম
  6. জবস
  7. জাতীয়
  8. টপ নিউজ
  9. টাঙ্গাইলে করোনা মহামারি
  10. তথ্যপ্রযুক্তি

সেই আজিজ-মিন্টুর একসঙ্গে জানাজা, পাশাপাশি কবরে দাফন

অনলাইন ডেস্ক
আপডেট : অক্টোবর ৫, ২০২১
Link Copied!

চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গার আলোচিত ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় দণ্ডপ্রাপ্ত দুজনের ফাঁসি কার্যকরের পর মিন্টু ও আজিজের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। মঙ্গলবার (০৫ অক্টোবর) ফজরের নামাজের পর নিজ গ্রাম রায়লক্ষ্মীপুরে জানাজা শেষে পাশাপাশি কবরে তাদের দাফন করা হয়।

দাফনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন খাসকররা ইউনিয়নের সংরক্ষিত ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য শাবানা খাতুন। তাদের জানাজায় এলাকার অসংখ্য মানুষ অংশ নেয়। তবে দাফনের আগ মুহূর্তে বৃষ্টি হওয়ায় দাফনকাজে বিঘ্ন সৃষ্টি হয়।

এর আগে রাত ৩টার দিকে দুটি অ্যাম্বুলেন্সযোগে যশোর থেকে দুজনের মরদেহ চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার রায়লক্ষ্মীপুর গ্রামে নিয়ে আসা হয়। এ সময় দুই পরিবারের সদস্যরা কান্নায় ভেঙে পড়েন। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে দাফন হওয়ায় কথা থাকলেও মিন্টু ও আজিজের শেষ ইচ্ছা অনুয়াযী ভোরেই তাদের দাফন সম্পন্ন করেছে পরিবার।

স্থানীয়রা জানায়, আজিজুলের মামাতো ভাই ঝিনাইদহ জেলার সাধুহাটি ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আতিয়ার রহমান জানাজার নামাজে ইমামতি করেন। সকাল হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে গ্রামের গোরস্তানে পাশাপাশি কবরে তাদের দাফন করা হয়। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উপস্থিতিতে লাশ কবরে নামানোর সঙ্গে সঙ্গে শুরু হয় মুষলধারে বৃষ্টি। এ কারণে দাফনকাজে কিছুটা বিলম্ব ও বিঘ্ন ঘটে।

প্রসঙ্গত, ২০০৩ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর আলমডাঙ্গা উপজেলার জোড়গাছা গ্রামের দুই নারীকে রায়লক্ষ্মীপুর গ্রামের মাঠে হত্যা করা হয়। তারা দুজন বান্ধবী ছিলেন। হত্যার আগে তাদের দুজনকে ধর্ষণ করা হয় বলে পুলিশের তদন্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, গলায় গামছা পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে মৃত্যু নিশ্চিত করতে ওই দুই নারীর গলা কাটা হয়। এ ঘটনায় নিহত এক নারীর মেয়ে বাদী হয়ে পরদিন আলমডাঙ্গা থানায় হত্যা মামলা করেন। মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত ওই দুজনসহ চারজনকে আসামি করা হয়। অপর দুজন হলেন একই গ্রামের সুজন ও মহি। মামলা বিচারাধীন অবস্থায় আসামি মহি মারা যান।

২০০৭ সালের ২৬ জুলাই এই মামলায় চুয়াডাঙ্গার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল সুজন, আজিজ ও কালুকে মৃত্যুদণ্ড দেন। এরপর আসামি পক্ষের লোকজন হাইকোর্টে আপিল করে। পরে ডেথ রেফারেন্স ও আসামিদের আপিল শুনানি শেষে হাইকোর্ট রায় বহাল রাখেন। ২০১২ সালে ১১ নভেম্বর নিম্ন আদালতের রায় বহাল রাখার আদেশ দেন হাইকোর্ট।

চলতি বছরের ২৪ ফেব্রুয়ারি আপিল বিভাগ দুই আসামির রায় বহাল রাখেন এবং অপর আসামি সুজনকে বেকসুর খালাস দেন। ২০ জুলাই যশোর কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি পান খালাসপ্রাপ্ত সুজন। পরে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আজিজ ও কালু রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চান, কিন্তু তা নামঞ্জুর হয়। সোমবার রাত ১০টা ৪৫ মিনিটে যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে তাদের ফাঁসি কার্যকর করা হয়।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।