টাঙ্গাইলমঙ্গলবার , ১৯শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. খেলাধুলা
  5. গণমাধ্যম
  6. জবস
  7. জাতীয়
  8. টপ নিউজ
  9. টাঙ্গাইলে করোনা মহামারি
  10. তথ্যপ্রযুক্তি

জিওফিতে প্রতারিত হাজারো গ্রাহক, খোঁজ মিলছে না মালিকের

অনলাইন ডেস্ক
আপডেট : অক্টোবর ৪, ২০২১
Link Copied!

চুয়াডাঙ্গার ই-কমার্স সাইট জিওফির চটকদার বিজ্ঞাপনে হাজার হাজার গ্রাহক প্রতারণার শিকার হয়েছেন। অনিবন্ধিত এই প্রতিষ্ঠানটির ঠিকানা ‘সিনেমা হলপাড়া, চুয়াডাঙ্গা’ দেওয়া থাকলেও তাদের কোনো অফিসের অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। প্রতিষ্ঠানটি গ্রাহকদের প্রায় এক কোটিরও বেশি টাকা নিয়ে উধাও হয়ে গেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

হাজারো গ্রাহকের কাছ থেকে টাকা নিয়ে পণ্য দিচ্ছে না জিওফি। আবার রিফান্ডও দিচ্ছে না। তাদের সঙ্গে যোগাযোগের নম্বরগুলোতে ফোন করলে কল যায় না। নেই কোনো হেল্প লাইনও। রিফান্ড বা ডেলিভারির বিষয়ে কথা বললেই ফেসবুক থেকে ব্লক করা হয়। কমেন্ট করলেও মুছে দেওয়া হয়।
ভুক্তভোগীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, অল্প দামে মোটরসাইকেল বিক্রির জন্য পরিচিতি পায় জিওফি। মোটরসাইকেলসহ অন্যান্য পণ্য ২১/৩৩ দিনে ডেলিভারি দেওয়ার কথা থাকলেও ৪৫ দিনেও দেয়নি জিওফি। ইতোমধ্যে চুয়াডাঙ্গা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরে তাদের বিরুদ্ধে বেশ কিছু অভিযোগ জমা পড়েছে। তবে এখনও পণ্য কিংবা টাকা ফেরত পাননি হাজারো গ্রাহক। খোদ প্রশাসনও জানে না এই প্রতিষ্ঠানটির কথা। প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে চলছে রমরমা ব্যবসা। বিষয়টি জানার পর প্রশাসনও এখন নড়েচড়ে বসেছে। তবে প্রতিষ্ঠানটির প্রকৃত মালিকের খোঁজ মিলছে না। তাদের ওয়েবসাইটে দেওয়া নম্বরগুলোতে ফোন দিলে তা বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, জিওফি তাদের অফিশিয়াল ফেসবুক গ্রুপে প্রতিদিনের কার্যক্রম পোস্ট করে থাকে। যে নম্বরটি (০১৯৪০-৩৪২৬৪৭) দিয়ে তারা রিফান্ড করছে সেটি নগদের এজেন্ট নম্বর।
নগদের চুয়াডাঙ্গা কার্যালয় থেকে জানা যায়, এই এজেন্ট নম্বরটি ই-কমার্স সাইট আদিয়ান মার্টের। তারা গ্রাহকের টাকা রিফান্ড দিয়ে থাকে এই নম্বর থেকে। এজেন্টের নাম দেওয়া হয়েছে এম আর ট্রেডার্স।

সরেজমিনে আদিয়ান মার্টের অফিসের নিচে গিয়ে এম আর ট্রেডার্সের সন্ধান মেলে। দোকানের ওপরে আদিয়ান মার্টের লোগো দেওয়া। আদিয়ান মার্টের সব মালামাল এম আর ট্রেডার্স থেকে গ্রাহকদের ডেলিভারি দিতে দেখা যায়।

আদিয়ান মার্টের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) জুবায়ের সিদ্দিকী এই এজেন্ট নম্বরের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, তাদের কোনো নগদের এজেন্ট নম্বর নেই।

এম আর ট্রেডার্সের কথা বললে তিনি বলেন, এই নামে অনেকেরই দোকান বা প্রতিষ্ঠান থাকতে পারে।

জিওফির গ্রাহক চট্টগ্রামের মেহেদি হাসান বলেন, গত ১৮ আগস্ট ডিসকভার ১১০ সিসির মোটরসাইকেল বাবদ তাদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ৭৮ হাজার ৫০০ টাকা পেমেন্ট করি। ৩৩ দিনের মধ্যে মোটরসাইকেলটি ডেলিভারি দেওয়ার কথা ছিল। এখনো পাইনি। গত ১ সপ্তাহ ধরে তাদের দেওয়া নম্বরে ফোন দিয়েছি। ফেসবুক পেজে মেসেজ দিয়েছি, ই-মেইল করেছি। কোনো কাজ হয়নি। সর্বশেষ দুদিন আগে আমাকে রিফান্ড (টাকা ফেরত) দেবে বলে জানানো হয়। এরপর আর যোগাযোগ করেনি তারা। তাদের সব নম্বর বন্ধ।

ঢাকার উত্তরার শাওন ইসলাম বলেন, গত ১৮ আগস্ট ডিসকভার ১১০ সিসির মোটরসাইকেল বাবদ ৭৮ হাজার ৫০০ টাকা পরিশোধ করি। ৩৩ দিনে পণ্য ডেলিভারি দেওয়ার কথা থাকলেও এখনো পাইনি। রিফান্ডও দিচ্ছে না আবার মোটরসাইকেলও দিচ্ছে না। তাদের সঙ্গে কোনো যোগাযোগও করতে পারছি না। শেষে চুয়াডাঙ্গা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরেও অভিযোগ দিয়েছি।

সিরাজগঞ্জ শহরের ব্যবসায়ী তাজ আমিন বলেন, চার ধাপে মোট ১ লাখ ৮০ হাজার টাকার মোবাইল ফোন অর্ডার দিয়েছি জিওফিতে। এর মধ্যে স্মার্টফোন ১৩টি এবং ফিচার ফোন ৫০টি। ২১ দিনে ডেলিভারি দেওয়ার কথা থাকলেও দেড় মাসেও ফোনগুলো পাইনি। ফোন নম্বর বন্ধ থাকায় অসংখ্য মেইল এবং মেসেজ দিয়েও কোনো রিপ্লাই পাইনি। পরে আমি চুয়াডাঙ্গা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরে অভিযোগ করেছি।
এদিকে সর্বশেষ শনিবার (০৩ অক্টোবর) জিওফি অফিশিয়াল হেল্প/সাপোর্ট নামে জিওফির অফিশিয়াল ফেসবুক গ্রুপ একটি পোস্টে বলা হয়- গেটওয়ে অনেক অর্ডার আমরা ডেলিভারি করেছি কিন্তু গেটওয়ে থেকে আমরা সময় মত পেমেন্ট পাচ্ছি না। তাই যাদের গেটওয়ে অর্ডার আছে কিন্তু ডেলিভারি হয়নি তারা আমদেরকে ব্যাংক ডিটেইলসসহ মেইল করুন। আমরা লিস্ট গেটওয়েতে পাঠাব। আপনাদের কাউকে গেটওয়েতে ফোন করার দরকার নাই। যাদের ব্যাংক পেমেন্ট আছে আমরা গেটওয়ে থেকে অর্থ ছাড়ের ওপর ভিত্তি করে ম্যানুয়ালি রিফান্ড করব। প্রতি সপ্তাহে কী পরিমাণ রিফান্ড হচ্ছে তার যাবতীয় বিস্তারিত আমরা গ্রুপে আপডেট দিব।

জিওফির ওয়েবসাইটে অফিসের ঠিকানা ‘সিনেমা হল পাড়া, চুয়াডাঙ্গা’ থাকলে ওই ঠিকানায় অফিস তো দূরের কথা তাদের কোনো অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। প্রতিষ্ঠানটি কার এটাও কেউ জানেন না। অত্র এলাকার কেউ জিওফির ব্যাপারেও জানেন না।
সম্প্রতি জিওফি অফিশিয়াল হেল্প/ সাপোর্ট গ্রুপে মোমিন নামে এক যুবক লাইভ করেন। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মোমিন পূর্বে ই-কমার্স সাইট আদিয়ান মার্টে চাকরি করতেন। কয়েকদিন আগে চাকরি ছেড়ে দেন।

গ্রুপটি বিশ্লেষণ করে জানা যায়, প্রায় কয়েক হাজার গ্রাহক প্রতারণার শিকার হয়েছেন। এক কোটিরও বেশি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে। বিষয়টি জানার পর চুয়াডাঙ্গার প্রশাসন নড়েচড়ে বসেছে।

বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদের চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার সভাপতি মেহেদি হাসান হিমেল মল্লিক বলেন, প্রতারণার শিকার হওয়া চট্টগ্রামের কয়েকজন আমাকে বিষয়টি জানান। তবে জিওফি নামে কোনো প্রতিষ্ঠান চুয়াডাঙ্গায় আছে তা আমি কখনো শুনিনি। বলা যায় তারা আন্ডারগ্রাউন্ডে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। প্রতিদিন প্রচুর গ্রাহক তাদের দ্বারা প্রতারিত হচ্ছে। এদেরকে আইনের আওয়ায় এনে কঠোর শান্তির দাবি জানাচ্ছি।

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর চুয়াডাঙ্গার সহকারী পরিচালক সজল আহম্মেদ বলেন, চুয়াডাঙ্গাতে জিওফি নামে কোনো ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান আছে বলে জানা নেই। এটা অনিবন্ধিত। গত দুদিনে আমার কাছে বেশ কিছু গ্রাহক জিওফির বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছে। আমরা ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে ব্যাংক অ্যাকাউন্টসহ ডিটেইলস নিয়েছি। বিষয়টি আমরা গুরুত্ব সহকারে দেখছি।
চুয়াডাঙ্গার জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার বলেন, এই প্রতিষ্ঠানের নাম আগে কখনো শুনিনি। আমাদের কাছে কেউ কোনো অভিযোগ করেনি। আর এভাবে সময় মতো পণ্য বা টাকা ব্যাক না দেওয়া হতাশাজনক। ঘটনার সত্যতা পেলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।